শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর জড়তা ও ভীতি দূর করার কৌশল:

উজ্জল কুমার বিশ্বাস: সকল শিক্ষার্থীর বুদ্ধিমত্তা সমান বা এক নয়। বুদ্ধির তারতম্য থাকলেও প্রত্যেক শিশুই আনন্দপ্রিয় ও কৌতুহলপ্রিয়। কিন্তু কোন কারনে যদি শিশুর মানসিক চাহিদা পূরনে পরিবেশ ও ব্যক্তি বাধা হয়ে দাড়াঁয় তবে শিশুর ব্যক্তিসত্তার বিকাশ অস্বাভাবিক ও ত্রুটিপূর্ণ হয়ে ওঠে। অবহেলিত ও অনাদৃত শিশুদের মধ্যে একধরনের ভীরুতা ও জড়তা দেখা দেয়। এদের অবহেলার গ্লানি দূর করে মনে সাহস ও ভরসা সৃষ্টি করা বাঞ্ছনীয়। কেননা মানসিকতায় জড়তা ও ভীতির উপস্থিতি শিখনের জন্য সহায়ক নয়।

শীতের সুরক্ষায় খুবই কার্যকর

জড়তা কী: জড়তা হচ্ছে এক ধরনের সংকোচ বা সংশয় যা ব্যাক্তিকে সহজ ও সাবলীল হতে বাধা দেয়।

ভীতি কী: ভীতি এক ধরনের মানসিক চাপ যা ব্যাক্তিকে কোন কাজে অংশগ্রহনে বিরত রাখে।

জড়তা ও ভীতির কারন:

  • বিদ্যালয় পরিবেশ আকর্ষনীয় না হলে শিশুর মধ্যে একধরনের জড়তা কাজ করে। কারন শিশু সবসময় চায় তার জন্য নিরাপদ পরিবেশ।
  • শিক্ষকের আচরন হতে হয় বন্ধুসুলভ। কিন্তু অনেক সময় শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথ রুঢ় আচরন করে থাকেন যে কারনে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভীতি কাজ করে।
  • সকল শিশুই একই মানসিকতার হয় না। সহপাঠীদের সাথে সম্পর্ক স্থাপনে সবাই সমান সক্রিয় নয়। তাই বিদ্যালয়ে সহপাঠীদের অবস্থানও শিক্ষার্থীর সাবলীল হতে বাধা দেয়।
  • শিশুর নিজের বাসগৃহে তার নিজস্ব একটা জগৎ সে তৈরি করে নেয় যেখানে সে স্বাচ্ছন্দ বোধ করে এবং অবাধে বিচরন করে। বিদ্যালয়ে অনেক ক্ষেত্রেই সেই পরিবেশ বিদ্যমান থাকে না। বিদ্যালয় ও গৃহ পরিবেশের পার্থক্যের জন্যেও শিশুর মধ্যে জড়তা ও ভীতি কাজ করে।
  • বিদ্যালয়ে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার পরিবারের শিশুর বিদ্যমান মানসিক অবস্থা এক নয় যা শিশুর জড়তা ও ভীতির অন্যতম কারন।
  • কিছু শিশু আছে যারা জন্মগতভাবেই স্নায়বিকভাবে দূর্বল। এসকল শিশুর মধ্যেও জড়তা ও ভীতি বিদ্যমান।
  • বর্তমানে পরিবারে একটি শিশু কিন্তু অনেক স্নেহ ,মমতা ও ভালোবাসা পেয়ে থাকে। বিদ্যালয়ে এর স্বাভাবিক অনুপস্থিতি শিক্ষার্থীকে ভীত করে তোলে।
  • শিশুর বিরুপ পরিবেশে অস্বস্তির কারনে শিক্ষকের সহানুভূতি প্রকাশে অপারগতাও অন্যতম কারন
  • শিশুর সন্তোষজনক ফলাফলেও শিক্ষকের সন্তুষ্টি পোষন না করা
  • ভালো কাজের জন্য স্বীকৃতি না দেওয়া
  • শিশু হলেও তার একটা নিজস্ব সম্মান রয়েছে। সম্মান না পাওয়াও শিশুর জড়তার কারন।
  • শিশু শিখনে অপারগ হলেও জড়তা ও ভীতি দেখা যায়
  • অপারগতায় শিক্ষকের শাস্তি প্রদানের মানসিকতা
  • পাঠ্যবইয়ের বিষয়বস্তুর কাঠিন্য
  • শ্রেণিকক্ষের প্রতিকূল পরিবেশ
  • শিশুর যোগযোগ দুর্বলতা
  • শিশুর প্রতিবন্ধীত্ব তার জড়তা ও ভীতির অন্যতম কারন

    Buy now

শিখণ শেখানো কাজে জড়তা ও ভীতির প্রভাব:

  • শিখন শেখানো কাজে সক্রিয় অংশগ্রহন না করা
  • অমনোযোগী হওয়া
  • শ্রেণি শৃংখলার ব্যাঘাত সৃষ্টি করা
  • শিখন শেখানোর কাজের স্বাভাবিক গতি বজায় না রাথা
  • বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকা
  • ঝরে পড়ার প্রবনতা বৃদ্ধি পাওয়া

শিখণ শেখানো কাজে শিশুদের জড়তা ও ভীতি দূর করার কৌশল

  • শিক্ষককে শ্রেণিকক্ষে প্রবেশের সময় হাসি খুশি থাকতে হবে।
  • কুশল বিনিময়ে সবসময় আন্তরিক হওয়া এবং মানসিক চাপে থাকা শিক্ষার্থীদের সাথে ভাব বিনিময় করতে হবে।
  • আবেগ সৃষ্টিতে শিশুদের প্রাধান্য দেওয়া
  • পাঠে চিত্র প্রদর্শনের ব্যবস্থা থাকলে পিছিয়ে পড়া শিক্ষার্থীদের দিয়ে আগে বিষয়বস্তু অনুশীলন করানো
  • সঠিক বলতে না পারলেও প্রশংসা করা
  • শিশুদের উন্নয়ন হচ্ছে এমন মনোভাব পোষন করা
  • শিখন শেখানো কাজে সকল শিশুকে সম্পৃক্ত করা
  • সহনশীল আচরন করা
  • শিশুর সাথে বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক স্থাপন করা
  • শিশুর বয়স, সামর্থ, রুচি অনুযায়ী শিখন শেখানো কৌশল নির্বাচন করা
  • পাঠ সংশ্লিষ্ট উপকরন ব্যবহার করা
  • সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলীর ব্যবস্থা করা
  • শিশুর শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীত্বকে স্বাভাবিক পরিচর্যা করা

বাস্তব পরিবেশ হলো আমাদের দেশে শ্রেণিকক্ষে অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থীর অবস্থান। এই অধিক সংখ্যক শিক্ষার্থীকে সমান সুযোগ প্রদান করাও অন্যতম চ্যালেঞ্জ। যেহেতু শিখনের জন্য নিরাপদ পরিবেশের কোন বিকল্প নেই, তাই বিদ্যালয়ের ভিতরে এবং বাইরে শিশুর জন্য জড়তা ও ভীতিমুক্ত পরিবেশ গঠনে শিক্ষক, অভিভাবকসহ সকলকে ঐক্য বদ্ধ হতে হবে।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Show Buttons
Hide Buttons
%d bloggers like this: