শিশুকালেই নৈতিক শিক্ষা এবং কিছু প্রতিপালনীয় বিষয়

উজ্জল কুমার বিশ্বাস: নৈতিকতার শিক্ষা ছাড়া কোন মানুষের মানবিক গুণাবলীর পরিপূর্ণ বিকাশ হয় না। শিশুকালেই যদি শিশুর মধ্যে নৈতিকতার  জন্ম হয় তাহলে ভবিষ্যতে সে নিজে যেমন সম্পদে পরিনত নয় সেই সাথে দেশ জাতির, তথা মানবের কল্যাণে কাজে লাগে। এক্ষেত্রে নিম্নোক্ত নীতিবাক্য সমূহ বিদ্যালয়ে চর্চা বা অনুশীলন করালে শিশুর মধ্যে সত্যিকারের নৈতিকতার জন্ম নিতে পারে!


১. সৃষ্টিকর্তার প্রতি দৃঢ় বিশ্বাস এবং সৃষ্টিকর্তার প্রতিদায়িত্ব পালন করবো।
২. বড়দের সম্মান করবো ও তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবো এবং ছোটদের স্নেহ করবো।
৩. বৃদ্ধ ও অক্ষমদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবো।
৪. বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবো।
৫. শিক্ষকদের সম্মান করবো এবং তাঁদের কথা মেনে চলবো।
৬. পিতা মাতার কথা শুনবো এবং তাঁদের সেবা করবো।
৭. জীবের প্রতি সদয় আচরণ করবো, গৃহপালিত পশুর যত্ন নেব এবং তাদের কষ্ট দেব না।
৮. শপথ, ওয়াদা বা কাউকে কথা দিলে তা রক্ষা করব।
৯. অপচয় রোধ করব ও মিতব্যয়ী হব;
১০. প্রতিটি কাজে সময় মেনে চলব;
১১. প্রতিবেশীর সাথে ভাল ব্যবহার করব;
১২. অন্যের মতামতের প্রতি সম্মান দেখাব;
১৩. সবার সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পক গড়ে তুলব;
১৪. সবসময় হাসিখুশি থাকব, যে কোন পরাজয় বা দুঃখকে হাসি মুখে বরণ করব;
১৫. কারো সাথে দেখা হলে সালাম দেব ও কুশল বিনিময় করব;
১৬. সবসময় কাজ, সময়, পরিবেশ ও অনুষ্ঠানে রুচিশীল পোশাক পরিধান করব;
১৭. চিন্তা কথা ও কাজে সবর্দা নির্মল থাকব;
১৮. রাতের খাবারের পর এবং সকালের নাস্তার পর দাঁত ব্রাশ করব, পানির ট্যাপ ছেড়ে রেখে দাঁত ব্রাশ করব না;
১৯. খাবারের পর শব্দ করে ঢেকুর তুলব না; হাঁটার সময় যাতে জুতার শব্দ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখব;
২০. যে কোন জায়গায় জাতীয় সঙগীত শুনলে উঠে দাড়াব;
২১. প্রতি সপ্তাহে নিয়মিত নখ ও প্রতি পাক্ষিকে নিয়মিত চুল কাটব;
২২. অযথা হাত নাড়িয়ে বা আঙ্গুল উচিয়ে কথা বলব না;
২৩. খাবারের আগে ও পরে এবং প্রতিবার টয়লেট ব্যবহারের পর সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করব;
২৪. সকাল দুপুর ওরাতে খাবারের পর নিজের প্লেট,গালাস ও কাপ নিজে পরিষ্কার করব;
২৫. ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে পানি পান করব;
২৬. প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করব ; কমপক্সে ৮/১০ গ্লাস;
২৭. হাই, হাঁচি বা কাঁশি এলে মুখের সামনে হাত বা রুমাল ধরব;
২৮. কাউকে জিনিস দেওয়া নেওয়ার ক্ষেত্রে ডান হাত ব্যববহার করব;
২৯. যে কোন জিনিস ব্যবহারের পর যথাস্থানে রাখব;
৩০. কারো ছবি তুলতে হলে তার অনুমতি নেব;
৩১. যে কোন কাজে লাইনে দাড়াব, এবং লাইন ভাঙবোনা;
৩২. যে কোন ক্ষেত্রে অপরের বিরক্তির কারণ হবে এমন কিছু করব না;
৩৩. কোন জায়গায় বসে থাকলে অকারণে পা নাড়ানো, অপ্রয়োজনীয় শব্দ করা থেকে বিরত থাকব
৩৪. সদা সত্য কথা বরব, সৎ পথে চলব, যখন যে কাজ করব মনযোগ দিয়ে করব,পড়াশোনা এবং কোন কাজে কখনও ফাঁকি      দেব না;
৩৫. নিয়মিত ও সঠিক সময়ে বিদ্যালযে আসব;
৩৬. প্রতিদিন পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন ইউনিফর্মে বিদ্যালয়ে আসব এবং সব সময পরিপাটি থাকবো;
৩৭. খাতা বই কিংবা দেওয়ালে দাগ দেব না বা কিছু লিখব না;
৩৮. নিয়মিত বাড়ির কাজ করব;
৩৯. নিজেরা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকব এবং অন্যকে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে উৎসাহিত করব;
৪০. যে কাজ করব সুন্দর ও পরিপাটিভাবে করব;
৪১. অন্যের খাতা দেখে লিখব না, নকল করব না, নকল করোর চেয়ে অকৃতকার্য হওয়া অনেক বেশী সম্মানজনক কথাটা মনে রাখব;

Advertisement

//pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js

৪২. কোন কাজ আগামী দিনের জন্য ফেলে রাখব না, সময়ের কাজ সময়ে শেষ করব;
৪৩. বাহিরের খোলা খাবার খাব না ও অন্যকে খোলা খাবার না খেতে উৎসাহিত করব;
৪৪. কারো সাথে ঝগড়া বিবাদ করব না;
৪৫. নিজেদের স্কুল , বাড়ি এবং পরিবেশ পরিষ্কার রাখব;
৪৬. রাস্তা ঘাটে বা যত্রতত্র থুথু,কফ, কাঁশি ফেলব না, এবং অন্যকে না ফেলার জন্য উৎসাহিত করব;
৪৭. যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা ফেলব না, নিদির্ষ্ট স্থানে ময়লা ফেলব;
৪৮. উচ্চস্বরে কথা বলব না, গান বাজাব না;
৪৯. কাগজ বা অব্যবহায কোন কিছুই নষ্ট না করে পুন:ব্যবহারের জন্য নিদির্ষ্ট  স্থানে সংরক্ষন করব
৫০. অকারণে পানি অপচয় করব না, অপ্রয়োজনে পানির ট্যাপ বন্ধ রাখব;
৫১. যতটুকু পানি পান করব গ্লাসে ততটুকু পানি ঢেলে নেব;
৫২. বিদ্যুৎ অপচয় করব না, স্কুলে , বাসায়, অফিসে কক্ষ ত্যাগ করার সময় বিদ্যুতের সুইচ বন্ধ করব;
৫৩. প্রয়োজন ছাড়া গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখব না, এবং অন্যকেউ তা অপ্রয়োজনে জ্বালিয়ে রাখা থেকে বিরত রাখব        নিরুৎসাহিত করব;
৫৪. রাস্তায় হাটার সময় ফুটপাত ব্যবহার করব, ট্রাফিক আইন মেনে চলব,
প্রয়োজনে ওভারব্রীজ  ব্যবহার করব, হাটার সময় ডান দিক দিয়ে হাটব;
৫৫. পশু পাখি আমাদের বন্ধু, তাদেরকে ভালবাসব;
৫৬. অবসর সময়কে কাজে লাগাবো, অবসর সময়ে বই পড়ব, ছবি আঁকব, খেলাধুলা করব,
আবৃত্তি শিখব, ফুল বাগানে কাজ করব, স্কাউটিং করব ইত্যাদি;
৫৭. কারণে অকারণে হঠাৎ রেগে যাব না;
৫৮. পরিবেশ আমাদের এক অপরিহার্ বন্ধু, আমাদের পরিবেশ আমরাই রক্ষা করব;
৫৯. নিজের কাজ নিজে করব এবং আত্মনির্ভরশীল হব;
৬০. প্রতিদিন কমপক্ষে একটি করে ভাল কাজ করব;
৬১. অনুমতি ছাড়া অপরের জিনিস ধরব না;
৬২. মানুষের সামনে বা পেছনে কারো প্রতি নাক শিটকানো, নিন্দা প্রকাশ বা বিকৃত সমালোচনা করব না, পরনিন্দা করব না;
৬৩. অতিরিক্ত আরাম আয়েশ বর্জন করব;
৬৪. বাবা-মা বা বড়দের পছন্দ অপছন্দের প্রতি গুরুত্ব দেব;
৬৫. কোন কাজে অধের্য্য হব না;
৬৬. বাড়ির কাজে বাবা মাকে সাহায্য করব;
৬৭. নিয়মিত পুষ্টিকর ও সুষম খাদ্য খাব;
৬৮. কাউকে হিংসা করব না এবং লোভ সংবরণ করব;
৬৯. দল বেধে চলার সময় রাস্তার একপাশ দিয়ে হাটব, অন্যের চলাচলে অসুবিধা করব না;
৭০. হাটাচলা অবস্থায় মোবাইল ফোনে কথা বলব না;
৭১. মোবাইল ফোনে কথা সংক্ষেপ করব, পরিবারের সবাই একসাথে বসলে মোবাইল ফোন  নিয়ে ব্যস্ত থকব না, সবার সাথে কথা বলব ও তাদের কথা শুনব;
৭২. কোথাও ভ্রমনকালে হৈচৈ, সেখানে সেখানে চিপস বা বাদামের খোসা ফেলে রাখব না;
৭৩. কোথাও ভ্রমনকালে মোবাইল ফোন নিয়ে ব্যস্ত থাকব না;
৭৪. গাড়িতে চলাচলের সময় মাথা বা হাত বাইরে রাখব না, এবং গাড়িতে ময়লা ফেলব না;
৭৫. চামচ দিয়ে খাবার সময় অপ্রয়োজনীয় শব্দ করব না;
৭৬. সমাজের সবর্স্তরের শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে সদয় আচরণ করব;
৭৭. কারো বাড়িতে বা কক্ষে প্রবেশের পূর্ দরজায় নখ করব;
৭৮. বিদ্যালয় ছুটির সময় স্ব স্ব শ্রেণিকক্ষ পরিষ্কার করে জানালা, লাইট ওফ্যানের সুইচ বন্ধ করে তারপর বের হব;
৭ ৯. বিদ্যালয়ের সিড়িতে উঠার সময় বাম দিক দিয়ে উঠব এবং ডান দিয়ে নামব;
৮০. খাবার টেবিলে খাবার দেওয়া হলে সবাই একসাথে খাওয়া শুরু করব এবং সবার খাওয়া শেষ হলে একসাথে খাওয়া থেকে উঠব, মিডডে মলি বন্ধুদের সাথে একসাথে খাব;
৮১. বিয়ে বাড়িতে খাবারের টেবিলে খাবারের উচ্ছিষ্ট টেবিলে ফেলব না, বনপ্লেট না থাকলে বনপ্লেট দিতে অনুরোধ করব, খাবার শেষে কখনও প্লেটে হাত ধোব না;
৮২. রোগীর সেবা করব;
৮৩. ঔষুধ খাওয়ার সময় প্রেসকিপশনের সাথে ঔষুধের নাম মিলিয়ে নিব।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Show Buttons
Hide Buttons
%d bloggers like this: