জিওলজির গুরুত্ব কম কেন নতুন প্রাকৃতিক সম্পদ আবিস্কার করতে পরনির্ভর বাংলাদেশ

যেখানে পৃথিবীর উন্নত দেশ গুলো জিওলজি কে অধিক গুরুত্ব দিয়ে পড়াশুনা করান হয় সেখানে আমাদের দেশে জিওলজি বিষয় টাকে রাখা হয়েছে পদমুলে! আমারা দেশের খনিজ সম্পদ খুজি না নিজেরা। অন্য দেশের কামলা এনে কাজ করাই আর আগুনে পুড়াই আমদের খনিজ সম্পদ, গ্যাস। এ এক আজব দেশ। সারা রাত্রি আমার গ্যাস জালিয়ে রাখি রান্না ঘরে। সিগারেট এর আগুন ধরাই রান্না ঘরের সরকারি গ্যাস এর আগুনে। অযথা সম্পদ নষ্ট করি। দন্ত থাকতে দন্তের মর্যাদা নাই।

জিওলজি একটা বহুমুখি বিষয়ের সম্মনয়ে পঠিত বিষয়। প্রতি বছর বাংলাদেশে জিওলজির মেধাবী ছাত্ররা পাস করে বেকার বসে থাকছে কেউ বা জিওলজিকে অধিক ভালবাসার ফল স্বরুপ নির্দিষ্ট বিষয়ের জন্য দেশের জন্য কাজ করার অধিক আগ্রহ প্রকাশ করে থাকে। চাকুরি খুজে বাংলাদেশের ভুতাত্তিক গবেষনায় আবদান রাখবে। সে গুড়ে বালি।

তারা ব্যাংকে জব করছে। নিজের মা  তুল্য প্রানের টুকরা প্রান প্রিয় “ জিওলজি” কে ছেড়ে। এ   ব্যাথার কথা আজ শ্রুত নয়। এ রোগ বহু পুরন। এখন আর কেউ এ নিয়ে কথা বলে না। আমরা ছেড়ে দিয়েছি দেশের খনিজ সম্পদের প্রতি মায়া মমতা, ভালবাসা। কারন ওটা এখন আর জিওলজিস্ট দের জন্য নয়। এখন পর্যন্ত দেশে  খনির কাজে দক্ষতা বৃদ্ধির  জন্য  ভাল কোন প্রতিষ্ঠান  আছে। আমরা আর কত দিন পর নির্ভরশীল থাকব? আমাদের খনিজ সম্পদ শেষ হয়ে গেলে?

বাংলাদেশ এখন নতুন সমুদ্র সীমা জয় করেছে। এখন অপার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়েছে নতুন কোন প্রাকৃতিক সম্পদ আবিস্কারের। আমদের কাজে লাগাতে হবে আমাদের নিজস্ব দক্ষ জন শক্তি। তাদের নিয়জিত করে দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য ভাল প্রশিক্ষন এর বাবস্থা করতে হবে। তবেই দেশ হবে সোনার বাংলা।

জাপান তাদের নিজেস্ব জন শক্তি ব্যবহার করে সব কাজে। আমেরিকাকে আনুসরন করে প্রচন্ড রুপে। কিন্তু আমেরিকার প্রতি নির্ভরশীল নয়। বিশ্ববিদ্যালয় এর ডিগ্রি নিয়েও অনেকে ভাল ইংলিশ বলতে পারেন না। তার পর ও তারা অনুসরনীয় আমাদের জন্য।

আর কোন বিদেশী নয় নিজেরাই করবো নিজেদের কাজ এই হোক ব্রত। দেশের খনিজ সম্পদ কে আর ও উত্তর উত্তর বৃদ্ধির জন্য এ হোক আশু গৃহীত সিদ্ধান্ত।


মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Show Buttons
Hide Buttons
%d bloggers like this: