বন্ধ হয়ে গেল তহকু ইউনিভারসিটির বায়োমারকার ল্যাব এর ম্যাস এক্সটিংশান গবেষনা

Kunio kaiho
প্রফেসর কুনিও কাইহো, তহকু ইউনিভারসিটি, জাপান

আজ থেকে ৪৬০ কোটি বছরের পুরন পৃথিবীর ইতিহাস এর পনরুদ্ধার এর যে গবেষণাগার সেই তুহকু ইউনিভারসিটির বায়োমারকার ল্যাব আজ থেকে বন্ধ হয়ে গেল। এই ল্যাব এর কর্ণধার বা প্রধান গবেষক জাপানের অন্যতম খ্যাতি সম্পন্ন বিজ্ঞানী প্রফেসর কুনিও কাইহো। তিনি পৃথিবীতে অতীতে সঙ্ঘটিত ৫ টি বড় প্রাণীর বিপর্যয় ঘটনা নিয়ে কাজ করছেন। সে গুলো হল।

  1.  ওরডভিসিয়ান- সিলুরিয়ান ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি (৪৫০-৪৪০ মিলিয়ন বছর আগে)
  2. লেইট ডেভনিয়ান ম্যাস এক্সটিংশান (৩৭৫-৩৬০ মিলিয়ন বছর আগে)
  3. পারমিয়ান ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি (২৫২ মিলিয়ন বছর আগে)
  4. ট্রাইচ্ছিক-জুরাচ্ছিক ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি (২০১.৩ মিলিয়ন বছর আগে)
  5. ক্রিটেসিয়ায়স-পালিওজিন ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি (৬৫ মিলিয়ন বছর আগে)

উপরক্ত ৫টি ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি নিয়ে কাজ করেছেন তহকু ইউনিভারসিটির  এই বিজ্ঞানী প্রফেসর কুনিও কাইহো।

কি ছিল ল্যাবরেটরিতে?

কাইহো ল্যাবরেটরি মূলত একটি আধুনিক ল্যাবরেটরি  এটাতে গ্যাস ক্রোমাটগ্রাফি ও ম্যাস/ম্যাস স্পেক্ট্রমেট্রি ডাটা আনাল্যজার দিয়ে গবেষনার কাজ করা হয়। একটি সক্সলেট এক্সট্রাকশান সেট। ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় আপারেটাস। প্রথমে পাললিক শিলা থেকে জৈব যৌগের একটি এক্সট্রাকশান যাকে বিটুমিন বলে। বিটুমিন থেকে গ্যাস ক্রোমাটগ্রাফি ও ম্যাস/ম্যাস স্পেক্ট্রমেট্রি ডাটা আনাল্যজার দিয়ে ডাটা উদ্ধার করে সেটা থেকে অতীতের পরিবেশ ও ম্যাস এক্সটিংশান  বা  গনবিলুপ্তি সম্পর্কে সঠিক তথ্য বের করা হয়।

গ্যাস ক্রোমাটগ্রাফি ও ম্যাস/ম্যাস স্পেক্ট্রমেট্রি
গ্যাস ক্রোমাটগ্রাফি ও ম্যাস/ম্যাস স্পেক্ট্রমেট্রি ডাটা এনালাইজার।

গুরুত্বপূর্ণ আবিস্কারঃ

আজ থেকে ঐ ল্যাবরেটরীর র সব কাজ বন্ধ।  তাই এক অর্থে থেমে গেল পৃথিবীর  নতুন নতুন ইতিহাস সৃষ্টির গল্প।  জিওলজিস্ট প্রফেসর কাইহো ইতিমধ্যে সারা পৃথিবী ব্যাপী সুনাম কুড়িয়েছেন তার গবেষণা দিয়ে। তিনি  ই  প্রথম    দেখিয়েছেন  যে ডাইনসর বিলুপ্তির সাথে  উল্কা পাতের এক নিবিড় সম্পর্ক রয়েছে। আর এই উল্কা পাত ছিল একটি বিচ্ছিন্ন ও আকস্মিক এক ঘটনা। পৃথিবীতে উল্কা পাত হয়েছিল বর্তমান মেক্সিকোর সিকসুলাব নামক এক জায়গায়। যেটা ছিল ৮১ কিমি এর ব্যাসের সমান একটি উল্কা আঘাত হেনেছিল আজ থেকে ৬৫ মিলিয়ন বছর আগে। ঠিক যদি  বর্তমান মেক্সিকোর সিকসুলাব নামক জায়গায় আঘাত  না হেনে পৃথিবীর অন্য কোন জায়গা আঘাত  হানত তবে ডাইনসর এর ভাগ্যে ঐ করুন পরিণতি নাও হতে পারত। বিজ্ঞানী কাইহো তার গবেশষনায় দেখিয়েছেন যে মেক্সিকোর সিকসুলাব এর ভু পৃষ্টের নিচেই রয়েছে বিশাল কার্বন ও পেট্রলিয়াম সমৃদ্ধ এক স্ট্রাতিগ্রাফিক স্তর। যার প্রজ্জলন  বায়মন্ডলে প্রথমে আকস্মিক কুলিং  ইভেন্ট ও পরে গ্লোবাল ওয়ার্মিং এর কারনে ডাইনসর তথা অন্যান্য প্রাণীর জীবনের নাশ হয়। এছাড়া পৃথিবীতে ঘটে যাওয়া ৫টি ম্যাস এক্সটিংশান এর আরও নতুন নতুন ইতিহাস এর পনরুদ্ধার করেছেন।  সমস্ত জাপান তথা পৃথিবী ব্যাপি একজন গুরুত্বপূর্ণ বিজ্ঞানী হিসাবে নিজেকে প্রমান করতে সমর্থ হয়েছেন বিজ্ঞানী কুনিও কাইহো।

কে দায়িত্ব নিবেন?

ঐ ল্যাবএর দায়িত্ব নিবেন তবে তা এখন ও অনিশ্চিত।

নতুন বিজ্ঞানী সৃষ্টিঃ

আমেরিকার ম্যাসাচুসেটস এ অধায়নরত ডঃ সাইতো ওই কাইহো ল্যাব এর একজন সফল ও উদীয়মান গবেষক। এ ছাড়া জাপানের এর টোকিয় ইউনিভারসিটির ডঃ তাকাহাশি সহ অনেক জিওলজিস্ট যারা আজ অবধি পৃথিবীর ইতিহাস পুনরুদ্ধার এর কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশের বরিশাল  বিশ্ব বিদ্যালয়ের  ডঃ ধীমান কুমার, রনি, ও এই আর্টিকেল এর লেখক সহ অনেকে প্রফেসর কাইহো র সহচরযে কাজ করেছেন জাপানের ঐ ল্যাবরেটরিতে।

বিজ্ঞানী কুনিও কাইহোর গাবেষনাসমুহঃ

প্রফেসর কুনিও কাইহো শতাধিক উচ্চমানের গবেষণা প্রবন্ধ  ও  কিছু  সংখ্যক বই লিখেছেন তার মধের  বিচ্ছিন্ন ভাবে কিছু দেয়া হল।

  1. End-Permian catastrophe by a bolide impact: Evidence of a gigantic release of sulfur from the mantle; Geology

  2. Global climate change driven by soot at the K-Pg boundary as the cause of the mass extinction ;Nature Scintific Report

  3. Site of asteroid impact changed the history of life on Earth: the low probability of mass extinction

 

যদি ঊপরের আর্টিকেল গুলো ফ্রী ডাউনলোড করতে চান তবে নিচের আর্টিকেল টি পড়ুন।

যে কোন বই অথবা  আর্টিকেল ডাউনলোড করুন সম্পূর্ণ ফ্রি!

 

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Show Buttons
Hide Buttons
%d bloggers like this: