একই সমুদ্রের জল ভিন্ন ভিন্ন রং হওয়ার রহস্য

একই সমুদ্রের জলের রঙ ভিন্ন ভিন্ন। এক পাশে নীল আর একপাশে  সাদা। এক নজর দেখে মনে হবে এটা কোন ঈশ্বরী খেলা। পৃথিবীর চার ভাগের তিন ভাগ ই জল। এই সমুদ্রের বিশাল জলরাশির রঙ একই আর তা হল নীল। সমুদ্রের এই নীলজলের এই রঙটা জাপানিজ রা বলে থাকে মিজু ইয়রু (জল এর মত নীলরঙ)। প্রকৃত পক্ষে নীল রঙ থেকে একটু আলাদা। যাই হোক, পৃথিবীর এমন এক জায়গা আছে যেখানে এই নীল জল আর সাদা জল আলাদা আলাদা বহমান। সমুদ্রের সেই অংশে সাদা ও নীল রং এ বিভক্ত হয়ে বহমান।কেউ বলছে এটা ঈস্বর  বা আল্লাহুর ইশারায় ঘটে চলেছে, কেউ বলছে এটা বহু আগেই পবিত্র গ্রন্থে লিপিবদ্ধ আছে ।

প্রকৃত কারনঃ

যখন দুটি জলীয় দ্রবন এক সাথে একই পাত্রে রাখা হয় তখন তাদের নিজেদের আলাদা আলাদা ঘনত্বের কারনে জলীয় দ্রবন এর  ভিতর দুটি আলাদা স্তর এর মত দেখায়। অর্থাৎ দুটি আলাদা ঘনত্বের জলীয় দ্রবন কখনই এক সাথে মিসে যাবে না যত ক্ষণ না তাদের নিজেদের ঘনত্ব একই হচ্ছে। তাই বর্তমান পৃথিবীর সমুদ্রে এমন এক জায়গা  আছে যেখানে দুটি আলাদা প্রনালী থেকে বহমান  দুটি পৃথক ঘনত্বের জল রাশি সমুদ্রের একটা জায়গা গিয়ে মিশে গিয়েছে। সেখানে দুটি ভিন্ন রঙের জল রাশি দেখা যায়। এটা কোন ঐশ্বরীক কারন নয় এটা বিজ্ঞান। যেমন, আরব সাগর ও পার্সিয়ান গালফ এর জল রাশি আলাদা রঙের। এই ধরনের ঘটনার জন্য আর ও অনেক কারন রয়েছে। যেমন যদি দুটি পৃথক জলরাশির লবনাক্ততার পার্থক্য থাকে তবে তারা কক্ষনও মিসে এক হয়ে যাবে না। তবে কিছু দূরে গিয়ে যখন ঐ সব পার্থক্য সৃষ্টি কারী গুনাগুন যদি দ্রবীভূত হয়ে কমতে থাকে তবে একই রঙের হয়ে যাবে।

ছবি; Clicked onboard M.T. Maritime Lira Passage from Arabian Sea towards Persian Gulf Camera used: iPhone 5

আর ও কিছু উদাহরণ

যেমন, আলাস্কা থেকে আসা, অ্যাটলান্টিক ও প্রশান্ত মহা সাগরের জলরাশি আলাদা আলাদা রঙের দেখায়।

জলের রং কেন নীল?

সমুদের জল তথা যেকোনো জলের রঙ নিরভর করে ঐ জলের উপর পতিত সূর্যের আলোর, শোষণ, বিক্ষিপ্ত, ও প্রতিফলনের বৈশিষ্ট্য এর উপর।  সমুদের জলের ভিতর কনা ( যেকোনো) গুলো থেকে সূর্যের আলো বিক্ষপ্ত হয়। পরিস্কার জল সূর্যর  সবুজ, লাল রঙ শোষন করে তবে  নীল রঙ প্রতিফলন হয় তখন আমরা জল কে নীল দেখি। সূর্যের ৭ টি রঙের তরঙ্গ দৈর্ঘ্য আলাদা আলাদা। লাল রঙের তরঙ্গ দৈর্ঘ্য বেশি অ্যাঁর নীল রঙের কম। তাই কনা বিহীন পরস্কার জলে, জলের নিজের আকৃতির সমান নীল রঙের তরঙ্গ হওয়ায় নীল রঙ প্রতি ফলিত হয় অ্যাঁর আমাদের চোখ নীল রঙ দেখে। যদি লাল রঙ প্রতিফলিত হত আমরা লাল দেখতাম। যেমন আমরা কোন বস্তু সাদা বা কাল দেখি কারন সূর্যের ৭ টি রঙ ই যথাক্রমে প্রতিফলিত ও শোষিত হয়।

তাই দুটি জল রাশির মধ্যে যদি  বিভিন্ন  আকৃতির কনা থাকে তবে কনা গুলো আকার  অনুসারে সূর্যের রঙ গুলো শোষণ, বিক্ষিপ্ত, ও প্রতিফলিত হয়। যেমন, তীরের জল রাশি বেশি সাদাটে। কারন বেশি কনা থাকে। এ কারনে দুটো জল রাশি ভিন্ন রঙের দেখায় যদি আলাদা ঘনত্বের জল রাশি এক সাথে কখনো  মিশে যাওয়ার সুযোগ থাকে।

তবে এটা নিঃসন্দেহে প্রকৃতির একটা অপরূপ দৃশ্য। সমস্থ পৃথিবীটাই একটা রহস্য। পৃথিবীর এই রহস্য কে জানলে নিজের মধ্যে প্রকৃত জ্ঞানের আলো বিচ্ছুরিত হয় যাতে মানব জাতি আরও উন্নত  ও মানবীয় হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Show Buttons
Hide Buttons
%d bloggers like this: